আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

করোনার নতুন ধরন কি আরও ক্ষতিকর?

যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের (স্ট্রেইন) সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। লন্ডন ও সাউথ-ইস্ট ইংল্যান্ডে এই সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়েছে। শীর্ষ স্বাস্থ্যকর্মীরা বলছেন, ভাইরাসের এই নতুন ধরন খুব বেশি মারাত্মক এমন কোনো প্রমাণ নেই। টিকার ক্ষেত্রেও এটি আলাদা কোনো আচরণ করবে বলে প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে এটি ৭০ শতাংশ পর্যন্ত বেশি ছড়ায়।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক বলেছেন, ‘করোনাভাইরাসের নতুন ধরনটি নিয়ন্ত্রণের বাইরে ছিল। আমরা এটি নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছি।’ চলতি বছরটিকে ভয়ংকর বলেও মন্তব্য করেন হ্যানকক।

স্থানীয় সময় গত শনিবার যুক্তরাজ্য করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার খবর জানায়। করোনাভাইরাসের নতুন এই ধরনের সংক্রমণ ঠেকাতে একে একে ইউরোপের দেশগুলো যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করেছে। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে নেদারল্যান্ডস, ফ্রান্স, আয়ারল্যান্ড, জার্মানি, বেলজিয়াম, ইতালি ও তুরস্ক।

বিবিসির স্বাস্থ্য ও বিজ্ঞানবিষয়ক প্রতিনিধি জেমস গেলাগহের এক বিশ্লেষণে জানা যায়, সেপ্টেম্বর মাসে করোনাভাইরাসের নতুন এই স্ট্রেইনটি শনাক্ত হয়। নভেম্বর মাসে লন্ডনের এক–চতুর্থাংশ বাসিন্দা নতুন ধরনের করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন।

ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে এসে সংক্রমিতের এই সংখ্যা বেড়ে দুই-তৃতীয়াংশ হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, নেদারল্যান্ডস, ডেনমার্ক ও অস্ট্রেলিয়াতেও করোনার নতুন এই ধরনে সংক্রমিত রোগী পাওয়া গেছে।

গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, করোনাভাইরাসের নতুন ধরন দ্রুত অন্য ধরনকে প্রভাবিত করছে। এ কারণে ভাইরাসটির নতুন ধরন সহজ ছড়িয়ে পড়ছে। তবে এ বিষয়ে এখনো পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। নিয়ন্ত্রণ করা গেলে নতুন ধরনটি সাধারণ হয়ে উঠতে পারে।

এই নতুন ধরটি উচ্চমাত্রায় রূপান্তরিত। যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, তাদের ক্ষেত্রে এটি বেশি সক্রিয় হতে পারে।

করোনার নতুন এই ধরন মারাত্মক সংক্রমণ ঘটাতে পারে বলে প্রমাণ নেই। উদ্ভাবনকারী টিকা ভাইরাসের নতুন এই ধরনের বিরুদ্ধেও কার্যকর। তবে ভাইরাসটি যদি আবার পরিবর্তিত হয় এবং টিকার কার্যকারিতা কমিয়ে দেয়, তাহলে সেটি উদ্বেগের বিষয় হবে।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, করোনাভাইরাসের নতুন ধরনটি ৭০ শতাংশ বেশি ছড়িয়ে পড়তে পারে।

ইমপিরিয়াল কলেজ লন্ডনের গবেষক এরিক ভলজ বলেন, করোনাভাইরাসের নতুন এই ধরন নিয়ে কিছু বলার মতো সময় এখনো আসেনি। তবে নতুন ধরনটি খুব দ্রুত সংক্রমিত হচ্ছে। নতুন ধরনটির ওপর নজরদারি করা জরুরি। তবে নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজিস্ট জোনাথন বল বলেছেন, ভাইরাসটি সংক্রমণ বাড়াচ্ছে কি না, তা নিশ্চিত করে বলার মতো তথ্যপ্রমাণ এখনো নেই।

স্থানীয় সময় আজ সোমবার সকালে ভাইরাসের নতুন ধরনের সংক্রমণ ও উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তী

error: Content is protected !!